মানবদেহের পঞ্চ ইন্দ্রিয়-এর মধ্যে একমাত্র ত্বক দ্বারা আমরা শীতগ্রীষ্ম প্রভৃতি আবহাওয়া সম্পর্কে অবগত হই। ত্বককে কয়েকটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। ত্বকের স্বাস্থ্য ধরণ বুঝে জত্ম নিতে হবে। তবেই ত্বক সাস্থ্য উজ্জল হয়ে উঠবে।

ত্বক সুস্থ ও ভালো রাখতে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে যাওয়া, আট ঘন্টার ঘুম নিশ্চিত করতে হবে। এবং সকালে তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে। যা মানসিক চাপ কমাতেও সাহায্য করবে। স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার অভ্যাস গড়লে ঘুমের সমস্যা কাটানো সম্ভব। ত্বক ভালো রাখতে সকালে উঠে ভালো মতো ত্বক পরিষ্কার করা ও যত্ন নেওয়া উচিত।

আমাদের বাহ্যিক সৌন্দর্যের প্রধান শর্ত হচ্ছে সুস্থ ও সুন্দর ত্বক। নানা কারণেই আমাদের ত্বক ম্লান হয়ে যেতে পারে। হতে পারে সংক্রমণের শিকার। তাই সবার আগে ত্বকের সুস্থতা নিশ্চিত করা জরুরি।

আরও পড়ুন

বাংলাদেশী ছাত্র ফ্রিল্যান্সার

মেথি এর উপকারি দিক

ব্যবসায় প্রতি মাসে হবে ১ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয়

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বেতন কত জানেন কি?

ভিটামিন ই এবং সি যুক্ত খাবার বেশি করে খাবেন। এগুলো ত্বক টাইটেনিং এর জন্য উপকারী। যেমন কমলা, মিষ্টি আলু, গাজর, জাম্বুরা ইত্যাদি।

প্রচুর পরিমাণে পানি খাবেন। পানি ত্বকের সেলে আর্দ্রতা যোগায় আর ইলাস্টিসিটি ইমপ্রুভ করে।প্রমাণিত হয়েছে পালং শাক, ডিমের কুসুম, অ্যান্টি-অক্সিডেণ্ট যুক্ত খাবার ত্বকের ইলাস্টিসিটির সমস্যা ২০ ভাগ পর্যন্ত কমিয়ে দেয়।

নিয়মিত দুধ ও নানা ধরনের ফল খাওয়া উচিত। ডাবের পানি, মধু ও খেজুর ত্বকের জন্য উপকারী।

ত্বক ভালো রাখার জন্য হলুদ ও সবুজ রঙের শাকসবজি, দুধ, ডিমের কুসুম, গাজর ইত্যাদি খেতে হবে। ভিটামিন সি-এর অভাবে দ্রুত বলিরেখা পড়ে। ভিটামিন সি বেশি আছে লেবু, পেয়ারা, আমলকী, টমেটো, কমলা, কাঁচা মরিচ এ গুলো খাবার তালিকায় রাখতে হবে।

খোলা বাতাস আপনার ত্বকের পক্ষে ভীষণ উপকারি। রোজ সকাল বিকাল খানিকক্ষণ খোলা বাতাসে বেড়ালে ত্বক ভালো থাকবে।

সব সময় পরিষ্কার-পরিছন্ন থাকাটা ত্বকের পক্ষে খুবই দরকার। যখন-তখন মুখে হাত লাগাবেন না। নিয়ম মেনে চললে ত্বকের স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.