সারিকা

একটি নব নির্মিত ৪তলা বিশিষ্ট বিল্ডিংয়ের রংয়ের কাজ করতে যান আব্দুন নূর সজল নামের একটি সুদর্শন যুবক । বয়সও ২৪-২৫ হবে দেখতেও খারাপ না । হঠাৎ করেই একদিন জানালা দিয়ে একটি মেয়েকে দেখতে পায় সজল নামের ছেলেটি । প্রথম দেখাতেই সারিকা মেয়েটিকে তার চোখে এবং মনে লেগে যায়।

সজল সম্পূর্ণ রূপে ভুলে যায় তাদের মধ্যে পার্থক্য এবং ব্যাবধান । তার পরের দিনেও কাজের ফাঁকে মেয়েটিকে দেখার জন্য অনেক চেষ্টা করতে থাকে সজল । এক সময় সেই মেয়েটিই এগিয়ে আসে তার দিকে । মেয়েটি সজলের তার নাম জানতে চায় । তাদের মাঝে অনেক ভালো একটা সম্পর্ক তৈরি হয় এমনকি তারা দুই জন জানালা দিয়ে খাবারও বিনিময় হয়।

একদিন সজল জানতে চায় তাদের বাসায় আর কে কে আছে এখন । সেই মেয়েটি তার জবাবে বলে — পরিবারের সব লোকজন তাকে বাড়িতে একা রেখেই বেড়াতে গেছে । আর মাধ্যমে তাদের দুজনের কথা বার্তা আরো বেশি করে বাড়ে। তাদের মধ্যে তৈরি হয় গভীর বন্ধুত্ব।

আরও পড়ুন

আবারও প্রকৃত বন্ধুর পরিচয় দিলেন সালমান খান

জন্মদিনের পোশাক নিয়ে মুখ খুললেন পরীমণি

যুক্তরাজ্যে ঢুকতে দেওয়া হলোনা মিজানুর রহমান আজহারীকে

কোটের বিরুদ্ধে আইনি লড়াই করতে পারবে না ফ্রী ফায়ার

এই বিষয়টি জানার পর সজলের মা তাকে সাবধান করে দেন এবং তার সহকর্মীতাও তাকে সতর্ক করে দেন যাতে সে আর ওই পথে না যায় । কিন্তু সজল কথা শুনে নাহ । কিছু দিন পরে এক সময় মেয়েটির পরিবারের সব লোকজন চলে আসে । তাদের মাঝে শুরু হয় জটিলতা। আর তারই সাথে তাদের গল্পটি মোড় নেয় ভিন্ন দিকে।

এমন একটি ভালোবাসার গল্প নিয়ে হাজির হয়েছেন ইশতিয়াক আহমেদ । ইশতিয়াক আহমেদ নির্মাণ করেছেন টেলিফিল্ম ‘এক রংমিস্ত্রীর জীবনের খণ্ডাংশ’ । মূল চরিত্র হিসেবে থাকছে রংমিস্ত্রী । আর সেই রংমিস্ত্রী এর চরিত্রে অভিনয় করেছেন আব্দুন নূর সজল । আর তার সেই নায়িকা বা মেয়ে হিসাবে অভিনয় করেছেন সারিকা সাবরিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.