বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে একাধিকবার সহবাস ধর্নায় যুবতী । গত রবিবার নয়াদিঘি ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের হরিদাস গ্রামে এই ঘটনাটি ঘটেছে । গাজোলের শলাই ডাঙা গ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের আহিল গ্রামের বাসিন্দা ওই যুবতী পেশায় সিভিল ভলান্টিয়ার । পরে পুলিশের বিয়ে দেওয়ার আশ্বাসে তিনি অনশন ধর্না তুলে নেন।

যুবতী বালিকা জানান, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যুবতীর সঙ্গে হরিদাস গ্রামের এক যুবকের আলাপ হয় । সেই যুবক একটি হাই স্কুলে শিক্ষকতার কাজ করেন । ধীরে ধীরে তাঁদের দুই জনের ঘনিষ্ঠতা বাড়তে থাকে । যুবতীর অভিযোগ যে, ২০২২ সালে তাকে বিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই যুবক তাঁর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে অনেক বার সহবাস করেছেন । কিন্তু এখন তাঁকে দেখে বিয়ে করতে অস্বীকার করছেন তিনি । প্রত্যাখ্যাত সহ্য করতে না পেরে হয়ে এদিন সকাল থেকে প্রেমিকের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসেন তিনি । পরে পুলিশের আশ্বাসে ধর্না তুলে নেন। তবে স্ত্রীর মর্যাদা না পেলে কঠোর পদক্ষেপের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ওই যুবতী। যুবতীর দিদির দাবি, দুই বছর ধরে তাঁর বোনের সঙ্গে ওই শিক্ষকের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছেন। যুবতীর দিদির দাবি, বোনকে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়া হোক।

আরও পড়ুন

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের বেতন কত জানেন কি?

পুরুষের টাক পড়ার কারণ ও করণীয়

এত সুবিধা, তবু কমছে টেলিফোন গ্রাহক

রংমিস্ত্রীর প্রেমে পড়ে গেলেন সারিকা সাবরিন

যদিও ধর্নার বিষয়ে ওই শিক্ষক সংবাদমাধ্যমে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। তবে তাঁর মা জানান, তিনি ছেলের সঙ্গে কথা বলেছেন। ছেলে তাঁকে বলেছে, ওই যুবতীর সঙ্গে তেমন কোনও সম্পর্ক ছিল না। শুধু বন্ধুত্ব ছিল। যুবতী তাঁর ছেলেকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.