ছেলে হারিয়ে যাওয়ার দীর্ঘ নয় বছর পর বাবা খুঁজে পেলেন তার ছেলেকে । ঘটনাটি ঘটে ফরিদপুর জেলার মধুখালী উপজেলায় যেখানে পুলিশ এর মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া যায় তাকে ।

মধুখালী থানার ইনচার্জ মো. শহিদুল ইসলাম আমাদের জানান যে, ক্ষগড়া চরী জেলার লক্ষী ছড়ি উপজেলার ২২০ নং ময়ুরখালী গ্রামের মো: হাসমত আলীর প্রথম পুত্র মো. অলি আহাম্মদ এর ছোট ছেলে মো. ইমরান হোসেন বয়স ১৬ বছর । সে ২০১১ সালে খাগড়া ছরি এলাকার সেনাবাহিনীর কাম্পের মো. আ. হাকিমের সাথে তার নিজের বাড়ি নেত্র কোনা জেলার পূর্বধলা উপজেলার ছনধরা গ্রামের একটি মাদ্রাসায় লেখা পড়া করার জন্য যায় । সেখানে মো: ইমরান প্রায় ৯মাস পর একদিন বাজার করার কথা বলে এলাকার একটু বাজারে যায় । এবং বাজারে গিয়ে আর ফিরে আসে না মাদ্রাসায় । মাদ্রাসায় ফিরে না আসায় মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মাওলানা মো. নুরুল ইসলাম পূর্বধলা থানায় একটি নিখোঁজ ডায়েরি করেন ।

আরও পড়ুন

নববধূকে ১.৮ লাখে বিক্রি করে দিলেন স্বামী!

পুলিশ কনস্টেবলদের জীবন সংগ্রাম

স্ত্রীর প্রেমিককে পিটিয়ে হত্যা করলেন তার স্বামী

সেই ভাইরাল মেয়ের কাশবনের ভিডিও লিংক

সেই মামলায় সূত্রে জানা যায়, ১০-১০-২০২১ ইং তারিখে সকালে অনুকামিক ৯ টার সময় ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলায় ঝাউহাটি বাজার থেকে স্ত্রী নুর জাহান বেগম আর স্বামী মৃত আব্দুল জলিল থানায় ইমরান নামের একটি ছেলেকে নিয়ে যায় । সে জানায় তার স্বামী জীবিত থাকা কালে ২০১১ সালের কোনো এক সকালে সেই ছেলে কে তারা রাস্তার ধারে বসে থেকে কান্না করতে দেখে । তার কাছে গিয়ে শুনতে পারে যে সে হারিয়ে গেছে। এবং সে তার বাবা মা বা এলাকার নাম বলতে পারছেন না । এমন অবস্থায় তারা তাকে রেখে দেয় তাদের ছেলে হিসাবে । কিন্তু সুদীর্ঘ ৯ বছর লালন পালন করার পরে সেই ইমরান তার নিজের বাবা মায়ের কাছে যাওয়ার জন্য ইচ্ছুক। তাই তাকে নিয়ে থানায় হাজির হন তিনি ।

মধুখালী থানার অফিসার ইনচার্জ বলে

ইরানকে জিজ্ঞাসা বাদে জানা যায় তার বাবার নাম মো: আলি আহম্মদ ধানা লক্ষী ছড়ি জেলার রাঙামাটি গ্রামে তাদের বাড়ি বলে জানান তিনি বলে জানায় । আমরা অনুসন্ধানে জানতে পারি লক্ষীছড়ি খাগড়াছড়ি জেলায় অবস্থিত । তাৎক্ষানিক ভাবে আমরা লক্ষীছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জের যোগাযোগ মাধ্যম হোয়াইআপের মাধ্যমে ইমরানের ছবি ঠিকানায় পাঠিয়ে ইমরানের পিতার ঠিকানা সনাক্ত করে গত ১২ অক্টোবর ২০২১ তারিখে রাতে ইমরানকে তার পিতার নিকট বুঝে দেই । এ সময় মধুখালী থানায় এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয় ।

কারণ একজন বাবা একজন মা দীর্ঘ ৯ বছর পর তার ছেলেকে বুকে আগলে ঘুরতে পেরেছেন ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.